Category Archives: ইউসুফ আল-কারাদাওয়ি

বহু আলেম রয়েছেন যারা কেবল বইয়ের জগতে বাস করেন

“বহু ‘আলেম বা শায়েখ রয়েছেন যারা বইয়ের জগতে বাস করেন, কিন্তু বাস্তব জগতে তাদের আনাগোনা নেই। তারা বাস্তবতার যে ধ্যানধারণা (ফিক্‌হুল ওয়াকি’) তা থেকে অনুপস্থিত, বরং বলতে পারেন বাস্তবের ধ্যানধারণা তাদের কাছ থেকে অনুপস্থিত। কেননা এনারা জীবনের বইটাকে খুলে দেখেন না, যেভাবে তারা পূর্ববর্তী ‘আলেমদের বই আদ্যোপান্ত পড়েন। এ কারণে তাদের কাছ থেকে এমন সব ফাতওয়া বের হয় যা (শুনলে) মনে হয় যেন এগুলোকে কবর থেকে উঠিয়ে আনা হয়েছে।”

[ইমাম য়ূসুফ আল-কারাদাওয়ী:’মূজিবাত তাগায়্যুরিল-ফাতওয়া ফী ‘আসরিনা’; পৃ: ৮৫]

Advertisements

যে জাতি ইতিহাসকে উপেক্ষা করে তার অবস্থা স্মৃতিভ্রংশ মানুষের সাথে তুলনীয়

“ইতিবাচক ও নেতিবাচক, জয় ও পরাজয় তথা সকল বিষয় সমন্বিত একটি জাতির ইতিহাস হচ্ছে সমৃদ্ধ খনির মতো যা থেকে সম্পদ আহরণ করে একটি জাতি তার বর্তমান গড়ে তোলে। যে জাতি ইতিহাসকে উপেক্ষা করে তার অবস্থা স্মৃতিভ্রংশ মানুষের সাথে তুলনীয়, যার কোনো মূল বা দিক-দর্শন নেই।”

— ড. ইউসুফ আল কারাদাওয়ি.

[ইসলামী পুনর্জাগরণঃ সমস্যা ও সম্ভাবনা, পৃ ৬৭]

বুদ্ধিবৃত্তিক সন্ত্রাস শারীরিক সন্ত্রাসের চেয়েও ভয়ঙ্কর

“বুদ্ধিবৃত্তিক সন্ত্রাস শারীরিক সন্ত্রাসের চেয়েও ভয়ঙ্কর।”

— ড. ইউসুফ আল কারাদাওয়ি

[ইসলামী পুনর্জাগরণঃ সমস্যা ও সম্ভাবনা, পৃ ৩০]​

অন্ধকারকে অভিশাপ দেয়ার পরিবর্তে একটি মোমবাতি জ্বালানোর চেষ্টা করো

একজন জ্ঞানী ব্যক্তি একদা বলেছিলেনঃ “অন্ধকারকে অভিশাপ দেয়ার পরিবর্তে রাস্তায় একটি মোমবাতি জ্বালানোর চেষ্টা করো।”

[শাইখ ইউসুফ আল কারাদাওয়ি, ইসলামী পুনর্জাগরণঃ সমস্যা ও সম্ভাবনা, পৃ ১৩৬]

মুসলিম তরুণদের প্রতি উপদেশ

“আমি মুসলিম তরুণদেরকে দিবাস্বপ্ন ও অবাস্তব ভাববাদিতা পরিহার করার উপদেশ দিচ্ছি। তাদেরকে ধূলোর ধরণীতে নেমে বড় বড় শহরের বস্তি ও গ্রামের নিপীড়িত মানুষের সাথে মিশতে হবে। এখানেই নির্ভেজাল পুণ্য, সরলতা ও পবিত্রতার উৎস নিহিত আছে। এসব মানুষ অভাবের তীক্ষ্ণ খোঁচায় দিশেহারা হয় না। এখানে সমাজ পরিবর্তন, পুনর্গঠন ও আন্দোলনের বিপুল উপাদান ছড়িয়ে আছে। এদের সাথে মেলামেশা করে তাদের অশিক্ষা-কুশিক্ষা দূর করে এবং তাদের খারাপ দিকগুলো বর্জন ও সুকৃতির বিকাশে উদ্যেগী হতে হবে। এজন্যে সংঘবদ্ধ ও সম্মিলিত প্রয়াস চাই। নিপীড়িতদের দুঃখ-কষ্ট লাঘব করা এবং তাদেরকে সঠিক পথে এনে জিহাদের কাতারে শামিল করার প্রচেষ্টাও ইবাদাহর মধ্যে গন্য। ইসলামে দাতব্য কাজে উৎসাহ দেয়া হয়, এটি ব্যক্তিগত ও সামষ্টিক কর্তব্যের অন্তর্ভুক্ত।”

— শাইখ ইউসুফ আল-কারাদাওয়ি

[ইসলামী পুনর্জাগরণ সমস্যা ও সম্ভাবনা, পৃষ্ঠা ১৩২]