Category Archives: ভালোবাসা

খাদীজা (রা) ছিলেন একজন অতুলনীয় নারী

ইসলাম গ্রহণের পর হযরত খাদীজা তাঁর সকল ধন-সম্পদ তাবলীগে দ্বীনের লক্ষ্যে ওয়াকফ করেন। রাসূল সা. ব্যবসা-বাণিজ্য ছেড়ে আল্লাহর ইবাদাত এবং ইসলাম প্রচারে আত্মনিয়োগ করেন। সংসারের সকল আয় বন্ধ হয়ে যায়। সেই সাথে বাড়তে থাকে খাদীজার দুশ্চিন্তা। তিনি ধৈর্য ও সহনশীলতার সাথে সব প্রতিকূল অবস্থার মুকাবিলা করেন। আল–ইসতিয়াব গ্রন্থে বর্ণিত হয়েছে, ‘মুশরিকদের প্রত্যাখ্যান ও অবিশ্বাসের কারণে রাসূল সা. যে ব্যথা অনুভব করতেন, খাদীজার কাছে এলে তা দূর হয়ে যেত। কারণ, তিনি রাসূলকে সা. সান্ত্বনা দিতেন, সাহস ও উৎসাহ যোগাতেন। তাঁর সব কথাই তিনি বিনা দ্বিধায় বিশ্বাস করতেন। মুশরিকদের সকল অমার্জিত আচরণ তিনি রাসূলুল্লাহর সা. কাছে অত্যন্ত হালকা ও তুচ্ছভাবে তুলে ধরতেন।’

[আসহাবে রাসূলের জীবনকথা – প্রথম খণ্ড – ড. আব্দুল মা’বুদ]

Advertisements

আমি এমন তিনটি জিনিস ভালোবাসি লোকে যা ঘৃণা করে

“আমি এমন তিনটি জিনিস ভালোবাসি লোকে যা ঘৃণা করে : দারিদ্র, অসুস্থতা এবং মৃত্যু। আমি এদের ভালোবাসি কেননা দারিদ্র হচ্ছে বিনয়, অসুস্থতা হলো গুনাহের মোচন এবং মৃত্যুর ফলাফল হলো আল্লাহর সাথে সাক্ষাত লাভ করা।”

— আবু দারদা (রাদিয়াল্লাহু আনহু)

[লা-তাহযান, আইদ আল-কারনি, পৃ ৩৪২]

আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা থাকার প্রমাণ হলো তাকে স্মরণ করা বাড়িয়ে দেয়া

“আল্লাহর প্রতি (কোন ব্যক্তির) ভালোবাসা থাকার প্রমাণ হলো তাকে (আল্লাহকে) স্মরণ করা (যিকির) বাড়িয়ে দেয়া। নিশ্চয়ই তোমরা এমন কিছুকে ভালোবাসো না যা তোমরা বেশি বেশি করে স্মরণ করো না।”

— রাবী ইবনে আনাস

[জামি আল-উলুম ওয়াল-হিকাম, ইবনে রজব, পৃ ৪৪৪]

যা ভালোবাসেন তা অর্জন করতে হলে

“আপনি যা ভালোবাসেন তা অর্জন করতে হলে আপনাকে অবশ্যই আপনার অপছন্দের বিষয়টিতে ধৈর্যধারণ করতে হবে।”

— ইমাম গাজ্জালী

নিজেকে যতই শক্তিশালী মনে করুন না কেন, ভালোবাসা আপনাকে দাস বানিয়ে ফেলবে

“আপনি নিজেকে যতই শক্তিশালী মনে করুন না কেন, ভালোবাসা আপনাকে দাস বানিয়ে ফেলবে। তাই কোন জিনিসটিকে ভালোবাসতে যাচ্ছেন সে ব্যাপারে সতর্ক থাকুন।”
— উস্তাদা ইয়াসমিন মোজাহেদ

অনেক অবিবাহিত ভাইয়েরা মনে করেন বিয়ে মানেই সুখ-শান্তি

“অনেক অবিবাহিত ভাইয়েরা মনে করেন, বিয়ে = সুখ-শান্তি ।

কিন্তু এই ব্যাপারটা সঠিক নয়। আপনি বিবাহিত বা অবিবাহিতই হোন না কেন, আপনি সুখী হতে পারেন। আপনার লক্ষ্য যদি কেবলমাত্র আল্লাহকে সন্তুষ্ট করা হয়, তাহলে আপনার জীবনের ঘটনাগুলো যতই কঠিন হোক না কেন, তিনি আপনাকে যেকোন অবস্থাতেই সন্তুষ্ট থাকার যোগ্য করে দিবেন।

নিঃসন্দেহে, অবিবাহিত থাকার চাইতে দ্বীনদার কাউকে বিয়ে করা অনেক উত্তম। কিন্তু দ্বীনদার এবং উত্তম চরিত্রের মানুষ পাওয়া বেশ কঠিন। অস্থির হয়ে ভুল সিদ্ধান্ত নিবেন না, নইলে হয়ত জীবনের বাকি সময় আপনাকে তার ফল ভোগ করতে হতে পারে।”

— আবু মুওয়াহহিদ

সুত্রঃ pure matrimony fb